সোমবার, ০৮ মার্চ ২০২১, ০৫:৩৭ অপরাহ্ন

আপডেট :
স্বল্প খরচে মানসম্মত ওয়েবসাইট তৈরির জন্য আজই যোগাযোগ করুন...
সংবাদ শিরোনাম :

আতিফ আসাদের গল্প।

তুই যদি টাকা খরচ না করিস তাহলে কালকেই দিনাজপুর থেকে বাড়ীতে পাঠিয়ে দিবো।
২০১৯ সালের কথা।অনার্সে ভর্তি হবো অনেক টাকা দরকার।বড় ঈদের আগে ১ মাস সময় ছিলো।তাই রাজমিস্ত্রি ও রডমিস্ত্রির কাজে চলে গেলাম নতুন শহর দিনাজপুর। শহরের বালুবাড়ী হলি ল্যান্ড কলেজের সামনেই ৭ তলা বিল্ডিং এ কাজ করতাম।আমার দৈনিক বেতন ছিলো ৪২০ টাকা।৩ বেলার খাবার বিল ছিলো ৮০-৯০ টাকা।কাজে যেতাম সকাল ৮ টায়।১১ টায় লাঞ্চ দিতো হালকা খাওয়ার জন্য।দোকানে এসে অনেকেই অনেক কিছু খেতো টাকা খরচ করে।কিন্তু আমি ৫ টাকার বেশি খেতাম না।খুব হিসেবি এই দিক দিয়ে।সবাই আমাকে নিয়ে হাসাহাসি করতো।বলতো,’শালার মানুষই রে তুই!’ আমি দৈনিক ১০০ টাকার উপরে ভাঙ্গবো না এটাই আমার পণ ছিলো।আর সবারই দৈনিক ১৫০-২০০ টাকা খরচ হতো।তাদের বেতনও ছিলো বেশি।কাজ শেষে সবাই রাতে,চা,সিগারেট, বিড়ি অনেক কিছু খেতে বের হতো।কিন্তু আমি যেতাম না।আমি হেঁটে মহারাজা গিরিজনাথ উচ্চ বিদ্যালয়ের সবুজ ঘাসের মাঠে বসে সময় পার করতাম।
একদিন তো সবাই সেইরকম বলা।তুই একটা টাকা খরচ করিস না,কি করবি রে এতটাকা দিয়ে!টাকা খরচ না করলে তোকে কালই বাড়ীতে পাঠিয়ে দিবো।আমরা কম টাকা নিয়ে যাবো আর তুই বেশি নিয়ে যাবি?তর জন্যে তো আমার বউ গালি দিবো।বলবো ওর থেকে কম টাকা নিয়ে আসছো কেন?
সবার হাসাহাসি শুনতে শুনতে ঈদের সময় এসে পড়লো।বাড়ীতে আসার আগে টাকা হিসেব হচ্ছে।দেখলাম খরচ শেষে আমার ১০ হাজার টাকা আসছে।এতগুলা টাকা নিয়ে দিনাজপুর থেকে যখন আসলাম, বিশ্বাস করেন কতটা আবেগ ভেতরে কাজ করেছে!কষ্টের টাকা,ওদিকে আমার জন্য সবাই আশায় পথ চেয়ে আছে।মাত্র ১০ হাজার টাকার জন্য প্রতিদিন আমি লাঞ্চে ৫ টাকা খরচ করেছি মাত্র।যদিও শরীরে কিছু ছিলো না।

পোস্টটি সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করুন:

Comments are closed.

©2020AnirbanNews.com All rights reserved  
Design & Developed BY POPULARHOSTBD